শেয়ার বাজারের হালচাল
১৭ ডিসেম্বর — ২৩ ডিসেম্বর | সাল ২০২৩

২৩ ডিসেম্বর ২০২৩

SUZLON_stock rise

Share Market: অল্প বিনিয়োগেই মালামাল, এক বছরে তিনশো শতাংশের বেশি রিটার্ন দিচ্ছে এই শেয়ার

এক বছরে দাম বেড়েছে ৩১০ শতাংশের বেশি। ৬ মাসে বেড়েছে ১৬৭ শতাংশের বেশি। তাতেই খুশির জোয়ার বিনিয়োগকারীদের মধ্যে। সোজা কথায় বিগত কয়েক মাসে ঝড়ের গতিতে বেড়েছে Suzlon Energy Ltd-এর শেয়ারের দাম। বর্তমানে সংস্থার মার্কেট ক্যাপিটাল ৫০ হাজার কোটিরও বেশি। পরিসংখ্যান বলছে, গত ৫২ সপ্তাহে সংস্থার শেয়ারগুলির সর্বোচ্চ দাম ওঠে ৪৪ টাকা।
সর্বনিম্ন দাম ছিল ৭ টাকার কাছে।

পরিসংখ্যান এও বলছে, চলতি বছরের ২৩ জুন এই সংস্থার এক একটি শেয়ারের দাম ছিল ১৩.৮৫ টাকা। ৩০ অগস্ট দাম দাঁড়ায় ২৬ টাকার কাছাকাছি। ২০ অক্টোবর দাম ছিল ৩২.৫০ টাকা। ১৭ নভেম্বর আবার দাম দাঁড়ায় ৪২.৩০ টাকা। যদিও বিগত কয়েকদিনে দামটা কিছু নেমে গিয়েছে। শুক্রবার মার্কেট বন্ধের সময় দাম দাঁড়ায় ৩৭.০৫ টাকা। প্রসঙ্গত, সম্প্রতি কেপি গ্রুপ থেকে ১৯৩.২ মেগাওয়াট বায়ু বিদ্যুত্‍ প্রকল্পের অর্ডার পেয়েছে Suzlon Energy Ltd. এই খবর প্রকাশ্যে আসতেই তা নিয়ে জোর চর্চা চলেছে বিনিয়োগকারীদের মধ্যে। শেয়ার কেনার জন্যও তুমুল উৎসাহ দেখা গিয়েছে বিগত কয়েক মাসে।
বাজার বিশেষজ্ঞদের মতে, নতুন অর্ডারের হাত ধরেই দালাল স্ট্রিটে খেলা ঘুরিয়ে দিয়েছে সুজলন। পরিসংখ্যানে দেখা যাচ্ছে গত বছরের ২৩ ডিসেম্বর থেকে চলতি বছরের ২২ ডিসেম্বর পর্যন্ত এই স্টকটি প্রায় আড়াইশো শতাংশ রিটার্ন দিয়েছে। এখন দেখার আগামীতে আরও কতটা শ্রীবৃদ্ধি দেখা যায় দেশের বায়ু শক্তি সেক্টরের বৃহত্তম এই সংস্থার।

২২ ডিসেম্বর ২০২৩

INOX IPO

INOX India-র IPO-এর দুর্দান্ত লিস্টিং, কতটা লাভজনক হতে পারে এই IPO !

INOX India আইপিওর জন্য মূল্য ব্যান্ড প্রতি শেয়ার 627-660 টাকা নির্ধারণ করা হয়েছিল। এই আইপিওটি 660 টাকার প্রাইস ব্যান্ড থেকে 44 শতাংশ লাফ দিয়ে বাজারে তালিকাভুক্ত হয়েছে।

প্রাইস ব্যান্ড থেকে 41.38 শতাংশ লাফ দিয়ে বিএসইতে স্টকটি 933.15 টাকায় খোলা হয়েছে। প্রাথমিক ট্রেডিং সেশনে আইনক্সের শেয়ার 48.31 শতাংশ বেড়ে 978.90 টাকায় পৌঁছেছে।

অন্যদিকে, এই শেয়ারটি 43.88 শতাংশ বৃদ্ধির সাথে 949.65 টাকায় NSE-তে তালিকাভুক্ত হয়েছে। কোম্পানির বাজার মূলধন প্রাথমিক বাণিজ্যে 8,522.24 কোটি টাকা দাঁড়িয়েছে। আইনক্স ইন্ডিয়ার 1,459.32 কোটি টাকার আইপিও সোমবার ইস্যুর শেষ দিনে 61.28 বার সাবস্ক্রিপশন পেয়েছে। আইপিওর জন্য প্রাইস ব্যান্ড স্থির করা হয়েছিল প্রতি শেয়ার পিছু 627-660 টাকা।

মার্কেট বিশেষজ্ঞড়া বলছেন যে INOX ইন্ডিয়ার 30 বছরের বাজার নেতৃত্বের শক্তিশালী উত্তরাধিকার রয়েছে। কোম্পানির আর্থিক ট্র্যাক রেকর্ডও ভাল। কোম্পানির ইতিবাচক নগদ প্রবাহের সাথে কোন ধরনের ঋণ নেই। কোম্পানির অর্ডার বুকও শক্তিশালী। সেই কারণে শেয়ার টি INVESTMENT এর জন্য দীর্ঘ সময় ব্যাপী ধরে রাখা যেতে পারে।

INOX Group এর INOX India কোম্পানিতে শেয়ার রয়েছে। INOX গ্রুপের কোম্পানিগুলির মধ্যে INOX Air Products এবং INOX Leisure । INOX ইন্ডিয়া 1976 সালে বরোদা অক্সিজেন নামে শুরু হয়েছিল। বর্তমানে এই কোম্পানি ক্রায়োজেনিক ট্যাঙ্ক এবং সরঞ্জাম, পানীয় kegs এর মত জিনিস তৈরি করে । INOX India 66টি দেশে রপ্তানি করে। এর তিনটি উত্‍পাদন কারখানা রয়েছে।

NEW YEAR STOCKS

Share Market: নতুন বছরে লক্ষ্মীলাভের আশা করছেন? নজর থাকুক এই শেয়ারগুলিতে

মাস ঘুরলেই নতুন বছর। নববর্ষে মোটা টাকা ঘরে তুলতে এখন থেকেই পরিকল্পনা শুরু করে দিয়েছেন বিনিয়োগকারীরা। কিন্তু, কোন স্টকে বিনিয়োগে সহজেই মিলতে পারে ভাল লাভ সেই বিষয়ে দিশাহীন অনেকেই। কিন্তু, মার্কেটে এমন কিছু চেনা-অচেনা স্টক রয়েছে যেগুলিতে বিনিয়োগ করলে অচিরেই মিলতে পারে বড় লাভ।এমনটাই মত বিশেষজ্ঞদের। এই স্টকগুলির সিংহভাগই নিফটি ৫০০ এর একদম উপরের দিকের তালিকায় রয়েছে। একইসঙ্গে মার্কেট ক্যাপিটালও ১০ হাজার কোটির উপরে।

তালিকায় রয়েছে আইটিসির শেয়ার। পরিসংখ্যান বলছে সংস্থার ৫ বছরের রেভিনিউ বৃদ্ধির হার ৯.৮২ শতাংশ। সেখানে নেট প্রফিটের মার্জিন বৃদ্ধি হতে দেখা গিয়েছে ২৬.০৬ শতাংশ। বর্তমানে এই স্টকটির দাম ৪৫০ টাকার আশেপাশে ঘোরাফেরা করছে। চলতি বছরের জুলাইতে এই সংস্থার স্টকের দাম ৪৯০ টাকার গণ্ডি ছাড়িয়ে যায়। তালিকায় রয়েছে টাটা কনসাল্টেন্সি সার্ভিসেসের শেয়ারও। বর্তমানে স্টকটির দাম ৩৭০০-র ঘরে ঘোরাফেরা করছে। গত ৬ মাসে স্টকটির দাম বেড়েছে ৫০০ টাকারও বেশি।

চলতি বছরে বড়সড় শ্রীবৃদ্ধি দেখা গিয়েছে এইচডিএফসি ব্যাঙ্কের শেয়ারের দামেও। চলতি বছরের জুলাইতে সংস্থার এক একটি স্টকের দাম ১৭০০ টাকার গণ্ডি ছাড়িয়ে গিয়েছিল। বর্তমানে দাম ১৬৫০ এর ঘরে ঘোরাফেরা করছে। চলতি বছরে মারকাটারি পারফর্ম না করলেও মোটের উপর খারাপ রিটার্ন দেয়নি হিন্দুস্তান ইউনিলিভারের শেয়ার। বর্তমানে সংস্থার এক একটি স্টকের দাম ২৫০০ মধ্যে ঘোরাফেরা করছে। আগামী বছর এই সংস্থার শেয়ারে আরও শ্রীবৃদ্ধি দেখা যেতে পারে বলে মনে করছেন শেয়ার বিশেষজ্ঞদের একাংশ।

২০ ডিসেম্বর ২০২৩

Motisons Jewellers IPO

Motisons Jewellers IPO: বাজার থেকে দারুণ সাড়া পেল মতিসন্স জুয়ালার্সের আইপিও

গ্রে মার্কেটে দারুণ সাড়া পাওয়ার পর দ্বিতীয় দিনে বিনিয়োগকারীদের ভিড় দেখা গেল মতিসন্স জুয়েলারি আইপিওতে (Motisons Jewellers IPO)। কেন এই আইপিওর দিকে ঝুঁকছে বাজার।

বাজার থেকে কেমন সাড়া পেল IPO টি
আজ আইপিও খোলার দ্বিতীয় দিনে মতিসন জুয়েলার্স লিমিটেডের প্রাথমিক পাবলিক অফার, যা 18 ডিসেম্বর সোমবার সর্বজনীন সাবস্ক্রিপশনের জন্য খোলা হয়েছিল।

এই কোম্পানি একটি বাজার থেকে ভাল সাড়া পেয়েছে। মঙ্গলবার বিডিংয়ের দ্বিতীয় দিন সকাল ১০ঃ৪০ পর্যন্ত ১৫১.০৯ কোটি টাকার আইপিও ২২.০৩ বার সাবস্ক্রিপশন পেয়েছে কোম্পানি।

কত তারিখ পর্যন্ত খোলা আইপিও
আইপিও 20 ডিসেম্বর বুধবার পর্যন্ত খোলা থাকবে। অ-প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীদের জন্য বিভাগটি ২৫.৮৩ বার সাবস্ক্রিপশন পেয়েছে, যেখানে খুচরো ব্যক্তিগত বিনিয়োগকারীদের কোটা ৩২.৯৬ বার সাবস্ক্রিপশন পেয়েছে।

কবে হবে লিস্টিং
মতিসন জুয়েলার্স আইপিও বরাদ্দ ২১ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে, যখন এটির তালিকা BSE এবং NSE উভয় ক্ষেত্রেই ২৬ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে।

বাজার পর্যবেক্ষকদের মতে, মতিসন্স জুয়েলার্সের তালিকাবিহীন শেয়ার বর্তমানে ইস্যু মূল্যের তুলনায় গ্রে মার্কেটে 109 টাকা বেশিতে লেনদেন করছে। 109 টাকা গ্রে মার্কেট প্রিমিয়াম মানে গ্রে মার্কেট পাবলিক ইস্যু থেকে 198.18 শতাংশ লিস্টিং লাভের আশা করছে।

মতিসন্স জুয়েলার্স আইপিও: আপনার কি সাবস্ক্রাইব করা উচিত?
আইপিওকে রেটিং দিয়েছে বিভিন্ন ব্রোকারেজ ফার্ম। আইপিওর ১৬ গুণ P/E এর আকর্ষণীয় মূল্যায়ন দর্শায়। ঝুঁকি কমানোর একটি ডিগ্রি প্রদান করে। বর্তমান বাজারের অনুভূতির পাশাপাশি মতিসন্স এর শক্তিশালী ব্র্যান্ড, প্রমাণিত ট্র্যাক রেকর্ড এবং বৃদ্ধির পরিকল্পনা বিবেচনা করে।”এটি বলেছে যে মতিসন্স জুয়েলার্সের একটি বৈচিত্র্যময় পণ্য পোর্টফোলিও রয়েছে এবং বৃদ্ধির একটি শক্তিশালী ট্র্যাক রেকর্ড প্রদর্শন করেছে। খুচরো নেটওয়ার্ক সম্প্রসারণ এবং প্রযুক্তি একীকরণের প্রতি মতিসনের প্রতিশ্রুতি তার বৃদ্ধির সম্ভাবনাকে আরও শক্তিশালী করে।

কোম্পানির নির্ধারিত প্রাইস ব্যান্ড কী রাখা হয়েছে ?
মতিসন্স জুয়েলার্স আইপিওর প্রাইস ব্যান্ড নির্ধারণ করেছে প্রতি শেয়ার পিছু ৫০ থেকে ৫৫ টাকার মধ্যে। যেখানে প্রতিটি শেয়ারের অভিহিত মূল্য হল ১০ টাকা। বিনিয়োগকারীরা একবারে সর্বনিম্ন ২৫০টি শেয়ারের একটি লট এবং সর্বাধিক ১৪টি লট অনুযায়ী ২৫০ টি শেয়ার কিনতে পারবেন। এই পরিস্থিতিতে, খুচরো বিনিয়োগকারীদের জন্য সর্বনিম্ন ১৩,৭৫০ টাকা এবং সর্বোচ্চ ১,৯২,৫০০ টাকা বিনিয়োগের সীমা নির্ধারণ করা হয়েছে। এই ইস্যুতে, খুচরো বিনিয়োগকারীদের জন্য ৩৫ শতাংশ শেয়ার, যোগ্য প্রাতিষ্ঠানিক ক্রেতাদের জন্য ৫০ শতাংশ এবং উচ্চ নেট ব্যক্তিদের জন্য ১৫ শতাংশ শেয়ার সংরক্ষিত হয়েছে।

কোম্পানি তহবিল দিয়ে কী করবে?
মতিসন্স জুয়েলার্স জয়পুরের একটি বিখ্যাত জুয়েলারি ব্র্যান্ড। এই আইপিওর মাধ্যমে উত্থাপিত অর্থের মধ্যে, কোম্পানিটি তার ঋণ পরিশোধের জন্য ৫৮ কোটি টাকা ব্যবহার করবে। কিছু পরিমাণ কার্যকরী মূলধন এবং সাধারণ কর্পোরেট উদ্দেশ্য পূরণের জন্য ব্যবহার করা হবে। কোম্পানির আইপিও খোলার আগে প্রি-আইপিওর মাধ্যমে ৬০ লাখ শেয়ার বিক্রি করে ৩৩ কোটি টাকার তহবিল সংগ্রহ করেছে।

১৯ ডিসেম্বর ২০২৩

Stocks_Down trend

শেয়ার বাজার পতনের সাথে বন্ধ হয়েছে, সেনসেক্স ১৬৮ পয়েন্ট এবং নিফটি ৩৮ পয়েন্ট কমেছে।

আজ সেনসেক্স এবং নিফটি লাল রঙে বন্ধ হয়েছে। সেনসেক্স ১৬৮ পয়েন্ট কমে ৭১৩১৫ এ এবং নিফটি 38 পয়েন্ট কমে ২১৪১৮ এ বন্ধ হয়েছে। ব্যাঙ্ক নিফটি ২৭৫ পয়েন্ট পড়ে ৪৭৮৬৭ এ বন্ধ হয়েছে। বিএসই মিড ক্যাপ শেয়ার ১০১ পয়েন্ট বেড়ে ৩৬২৯৯ পয়েন্টে এবং বিএসই স্মল ক্যাপ শেয়ার ২০২ পয়েন্ট বেড়ে ৪২২৮৫ পয়েন্টে বন্ধ হয়েছে।

নিফটি ৫০-তে, ১৬ টি স্টক বেড়েছে এবং ৩৪ টি স্টক পতন দেখেছে।

সেনসেক্সের শীর্ষ লাভকারী এবং ক্ষতিগ্রস্থ?
সানফার্মা , রিলায়েন্স ইনড্যাশট্রিস ,এইচসিএল টেক ,হিন্দুসস্তান উনিলিভার , বাজাজ ফাইনান্স এবং মারুতি-এর শেয়ারগুলি শীর্ষে ছিল৷

পাওয়ার গ্রিড, আইটিসি, জেএসডব্লিউ স্টিল, আইসিআইসিআই ব্যাঙ্ক, টেক মাহিন্দ্রা, ইনফোসিস, ইন্ডাসইন্ড ব্যাঙ্ক এবং মাহিন্দ্রা অ্যান্ড মাহিন্দ্রা শীর্ষস্থানীয় লোকসানে ছিল।

নিফটির টপ GAINERS এবং LOOSERS
বাজাজ অটো, হিন্দাল-কো, আদানি পোর্টস , সান ফার্মা, রিলায়েন্স, বাজাজ ফাইন্যান্স, এইচসিএল টেকের শেয়ার শীর্ষে ছিল।

যেখানে পাওয়ার গ্রিড কর্পোরেশন, আইসিআইসিআই ব্যাঙ্ক, আইটিসি, জেএসডব্লিউ স্টিল, টেক মাহিন্দ্রা, ওএনজিসি, অ্যাপোলো হাসপাতালের শেয়ারগুলি শীর্ষ হারে ছিল।

অন্যান্য বাজারের অবস্থা কী ছিল?
এশিয়ান বাজার সম্পর্কে কথা বললে, টোকিও, সাংহাই এবং হংকং লাল চিহ্নে বন্ধ ইউরোপের বাজারে মিশ্র প্রবণতা ছিল। শুক্রবার, আমেরিকার বাজার সবুজ চিহ্নে বন্ধ হয়েছে।

অপরিশোধিত তেল সস্তা হয়েছে
গ্লোবাল অয়েল বেঞ্চমার্ক ব্রেন্টঅশোধিত 0.29 শতাংশ কমে US$76.33 ব্যারেল প্রতি। বিনিময় তথ্য অনুসারে, বিদেশী প্রাতিষ্ঠানিক বিনিয়োগকারীরা (এফআইআই) 9,239.42 কোটি টাকার ইকুইটি কিনেছে।

১৮ ডিসেম্বর ২০২৩

RBZ-Jewellers-IPO-1024x536

RBZ Jewellers IPO: 19 ডিসেম্বর থেকে মিলবে বিডের সুযোগ!

আগামী সপ্তাহে বাজারে আসতে চলেছে RBZ Jewellers -এর আইপিও। 19 ডিসেম্বর থেকে এই কোম্পানির আইপিও-তে সাবস্ক্রিপশন শুরু হচ্ছে। জানা গিয়েছে, 21 ডিসেম্বর পর্যন্ত বিনিয়োগকারীরা এই কোম্পানির আইপিও-তে বিড করতে পারবেন।

কোম্পানির ব্যবসা
বর্তমানে এই কোম্পানি সোনার গয়না তৈরি করে। বিশেষত প্রাচীন নকশার গয়নার প্রতি বিশেষভাবে জোর দিয়েছে কোম্পানিটি।দেশের 19টি রাজ্য এবং 72 টি শহরে এই কোম্পানি ব্যবসা করছে। জানা গিয়েছে, 2022 সালে ভারতে সংগঠিত পাইকারি বিক্রয়ের রত্ন ও গয়নার বাজারের আকার ছিল 21600 কোটি টাকা। এদিকে দেশে খুচরা গয়নার বাজার ছিল 1.5 থেকে 1.6 লক্ষ কোটি টাকা।

জানা গিয়েছে এই কোম্পানির আইপিও-তে সম্পূর্ণ অংশ নতুন ইস্যু। সংস্থার নতুন ইস্যুর মধ্যে রয়েছে প্রায় 1 কোটি শেয়ার। তবে কোম্পানিটির আইপিও-তে কোনও অফার ফর সেলের অংশ নেই।

শেয়ারের দাম কত?
এই কোম্পানির আইপিও-তে প্রাইস ব্যান্ড রয়েছে 95-100 টাকা। উপরের ব্যান্ড অনুসারে, সংস্থাটি 100 কোটি টাকা সংগ্রহের পরিকল্পনা করেছে। এই সংস্থায় যদি বিনিয়োগ করতে চান, সেক্ষেত্রে ন্যূনতম 150 টি শেয়ারের জন্য বিড করতে হবে।

জানা গিয়েছে, এই কোম্পানির অফারের প্রায় 35 শতাংশ কোয়ালিফায়েড ইনস্টিটিউশনাল ইনভেস্টরদের জন্য সংরক্ষণ করা হয়েছে। খুচরা বিনিয়োগকারীদের জন্য রয়েছে 35 শতাংশ শেয়ার। নন ইনস্টিটিউশনাল ইনভেস্টররা এই কোম্পানির ইস্যুর 30 শতাংশের জন্য বিডের সুযোগ পাবেন। 2022-23 সালে কোম্পানির আয় বার্ষিক নিরিখে প্রায় 14 শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছে 288 কোটি টাকা। প্রাথমিকভাবে পণ্য এবং পরিষেবা বিক্রয় থেকে এই কোম্পানির মূল আয় হয়। সংস্থাটির কর বাদ দিয়ে মুনাফা প্রায় 55 শতাংশ বৃদ্ধি পেয়ে হয়েছে 22.3 কোটি টাকা।

stock moving upward

পরবর্তী সপ্তাহে বিনিয়োগকারীদের কী করা উচিত? জেনে নিন বিশেষজ্ঞের মতামত
পরবর্তী সপ্তাহে বাজার কি অবস্থায় থাকতে চলেছে, বিনিয়োগকারী হিসাবে আপনিই বা কোন কোন বিষয়গুলির উপর নজর রাখবেন? দেখে নিন বিশেষজ্ঞের মত।

শুক্রবারও দিনের শেষ ভালো প্রদর্শন করল নিফটি। সূচকটি তার নতুন সর্বোচ্চ অবস্থান থেকে 274 পয়েন্ট উপরে উঠে শুক্রবারের দিন শেষ করেছে। এছাড়াও এটি সফলভাবে দৈনিক ও সাপ্তাহিক চার্টে ‘গ্রিন ক্যান্ডেল’ তৈরি করতে সক্ষম হয়েছে। যা অবশ্যই একটি অত্যন্ত ইতিবাচক বিষয়। বিশেষজ্ঞ মহলের ধারণা, 2,1492 পয়েন্টের তাৎক্ষনিক প্রতিরোধ চলে গেলেও এই ক্ষেত্রে আরও উত্থান লক্ষ্য করা যেতে পারে। যদিও সূচকটির ক্ষেত্রে নিকটবর্তী মেয়াদের জন্য সতর্কতা অবলম্বন করা হয়েছে কারণ, 84.93 পয়েন্টে 14 দিনের RSI অতিরিক্ত ক্রয়ের অঞ্চলে রয়েছে। এই প্রসঙ্গে এইচডিএফসি সিকিউরিটিজের সিনিয়র টেকনিক্যাল এবং ডেরিভেটিভ অ্যানালিস্ট সুবাস গঙ্গাধরন বলেছেন, উপরিউক্ত বিষয়গুলির উপর লক্ষ্য রেখে মানসম্পন্ন স্টক কেনার জন্য যেকোন স্বল্পমেয়াদী সংশোধন ব্যবহার করা যেতে পারে।

14 সপ্তাহের রিলেটিভ স্ট্রেংথ ইনডেক্স (RSI) বর্তমানে 75.87 পয়েন্টে রয়েছে। এটি স্পষ্ট ইঙ্গিত করে, এই ক্ষেত্রে খুব বেশি ক্রয়-বিক্রয় হয়নি এবং মধ্যবর্তী মেয়াদে আরও উত্থানের সুযোগ বর্তমান রয়েছে। বিকল্প তথ্য 21,400 CE এবং 21,500 CE তে ‘হেভি রাইটিং’ প্রকাশ করেছে।

বিনিয়োগকারীরা কী করবেন?
পরবর্তী সপ্তাহের জন্য এলকেপি সিকিউরিটিজের রূপক দে বিনিয়োগকারীদের পরামর্শ দিয়েছেন, “প্রযুক্তিগত চার্টে কোন বিপরীত সংকেতের উপস্থিতি নেই। এই বিষয়টি নির্দেশ করে প্রচলিত অনুভূতি বুলসের পক্ষে দৃঢ়ভাবে প্রদর্শিত হয়েছে। 21,500 পয়েন্টে রেজিস্ট্যান্স লক্ষ্য করা গিয়েছে। এই ক্ষেত্রে নির্দিষ্ট স্তর পেরিয়ে গেলে নিফটিতে সম্ভাব্য আরও সমাবেশ দেখা যেতে পারে। সমর্থন বর্তমানে 21,300 পয়েন্টে অবস্থান করছে।

১৭ ডিসেম্বর ২০২৩

রেকর্ড উচ্চতায় শেয়ার বাজার! কোন কোন স্টকে লাভের সম্ভাবনা?

ভারতীয় শেয়ার বাজারের দুরন্ত গতি বর্তমান। লাফিয়ে লাফিয়ে বাড়ছে সূচক।শুক্রবারও ভালো প্রদর্শন করল নিফটি। শুক্রবার সকালে সর্বকালীন রেকর্ড উচ্চতায় পৌঁছল নিফটি 50। সূচকটি তার নতুন সর্বোচ্চ অবস্থান থেকে 274 পয়েন্ট উপরে উঠে শুক্রবারের দিন শেষ করেছে। এদিন সকাল 9টা 15 তে বাজার খোলার পর 21,298 পয়েন্টে উঠে যায় নিফটি 50।

পাশাপাশি সেনসেক্সেও দেখা গিয়েছে ঊর্ধ্বগতি। ভারতীয় শেয়ার বাজারের( SHARE MARKET) এই ঊর্ধ্বগতি কিন্তু দেশের তিন রাজ্যে বিজেপির জয়ের পর থেকেই বর্তমান রয়েছে। চলতি সপ্তাহে কয়েকদিন সূচকের গতি মন্থর হলেও, শুক্রবার দেখা গেল, বিয়ারকে ধরাশায়ী করেছে বুল। ফলে হাসি ফুটেছে বিনিয়োগকারীদের মুখে।

বাজারের সেনসেক্স( SENSEX ) সূচকটি এদিন খুলেছে 70,804 পয়েন্টে। মাত্র কয়েক মিনিটের মধ্যেই সূচকটি 70900 পয়েন্টে দিকে এগিয়ে যায়। যা কিনা এই সূচকের সর্বোচ্চ পর্যায়।এদিন বাজার চড়া থাকায় বিনিয়োগকারীরা নিশ্চিন্তে ট্রেড করতে পারেন। বেশিরভাগ শেয়ারই ঊর্ধ্বমুখী।এমনই কয়েকটি সম্ভাবনাময় স্টকের তালিকা উল্লেখ করা হল-এইউ স্মল ফাইন্যান্স ব্যাঙ্ক, ইন্ডাস টাওয়ারস, গেইল, টিসিএস, ইনফি, এইচসিএল টেক। এছাড়াও ব্যাংক, ধাতু, তেল ও গ্যাস শুক্রবার লাভে ছিল।

পুরাতন তথ্যসমূহ
অনুসরণ করুন
যোগাযোগ করুন
পরিচিতদের সাথে এটি শেয়ার করুন

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *

নিউজলেটার সাবস্ক্রাইব
শেয়ার বাজার সংক্রান্ত নিয়মিত তথ্য পেতে আপনার ই-মেলটি আমাদের সাথে তালিকাভুক্ত করুন

You cannot copy content of this page